সোশ্যাল মিডিয়ায়ও ভর্তি কালি মাখা মুখের ছবি, প্রশ্ন এ কেমন আন্দোলন?

সোশ্যাল মিডিয়ায়ও ভর্তি কালি মাখা মুখের ছবি, প্রশ্ন এ কেমন আন্দোলন?

পরিবহন শ্রমিকরা তাদের ৮ দফা দাবী আদায়ের লক্ষ্য নিয়ে ৪৮ ঘণ্টার কর্মবিরতি পালন করছেন গতকাল রবিবার সকাল থেকে। ভালো কথা, তাহলে যারা গাড়ি নিয়ে বের হচ্ছেন তাদের মুখে কালি মাখার অধিকার কে দিয়েছে আপনাদের? এমনও হাজার প্রশ্নসহ জনপ্রিয় সোশ্যাল মিডিয়ায় কালি মাখা মুখের ছবি দেখা যাচ্ছে পুরো ওয়ালজুড়ে।

রবিবার ও সোমবার সকাল থেকেই সব স্যোশাল মিডিয়ায়ে এই ছবিগুলো ঘুরপাক খাচ্ছে।

এই ঘটনা নিয়ে সাংবাদিক হাসান আহমেদ লিখেছেন, ‘গাড়ি চালবেননা, ওকে! অন্যের মুখে কালি মেখে এ কেমন আল্দোলন! কালি শাহাজাহান খানের মুখে মাখা উচিত! অসভ্যতার একটা সীমা আছে।’

অন্য আরেকজন লিখেছেন. ‘ ধর্মঘট চলাকালে যাত্রাবাড়ী এলাকায় একজন গাড়ী চালকের মুখে আন্দোলনকারীরা পোড়া মোবিল মেখে দেন। শুধু যাত্রাবাড়ী নয়, পোড়া মোবিল মেখে দেওয়া হয়েছে নারায়নগঞ্জ মহিলা কলেজের বাসের চালকের মুখে, আক্রান্ত হয়েছে কলেজের ছাত্রীরা।

মৌলভীবাজারে অ্যাম্বুলেন্সে করে হাসপাতালে নেওয়ার পথে শিশুর মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে, বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের ডাকা ধর্মঘট চলাকালে ওই অ্যাম্বুলেন্সকে বাধা দেয় শ্রমিকেরা। পোড়া মোবিলে আক্রান্ত মুখগুলোতে আমি আমার নিজের প্রতিচ্ছবি দেখতে পেয়েছি। রাষ্ট্রের একজন নাগরিক হিসেবে আমি এই ধরণের সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের সাথে সম্পৃক্তদের শাস্তি দাবী করছি। হোক প্রতিবাদ।’

এমন বাক্য শুধু একক কোন মানুষের নয়, বরং ফেসবুকে অনেকের টাইমলাইনে কিছু ছবির সঙ্গে দেখা যাচ্ছে।

এদিকে শ্রমিকরা রাস্তার মোড়ে মোড়ে অবস্থান নিয়ে ব্যক্তিগত গাড়ির চালক, স্কুল শিক্ষার্থী, সাধারণ মানুষ সবার গায়ে- মুখে দিয়েছেন পোড়া মবিলের দাগ। এমন পোড়া মবিল মাখানোর ভিডিও, স্থিরচিত্রগুলো ভাইরাল হয়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে। বিশেষ করে ফেইসবুকের ওয়াল জুড়ে এখন ছড়িয়েছে কালো মবিলের দাগ।

এদিকে  রাজধানীর মহাখালী বাসস্ট্যান্ডে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক ওসমান আলী বলেন, জামিন অযোগ্য আইন বাতিল না করা পর্যন্ত গাড়ি চালাবে না চালকরা। সরকারের সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় যদি না বসে তাহলে এ কর্মসূচি আরও দীর্ঘায়ত করবে। ৪৮ ঘণ্টা শেষে ৯৬ ঘণ্টার ধর্মঘট চলবে। এরপর লাগাতর কর্মবিরতিতে যাবে।

এ বিষয়ে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের সেতু ভবনে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, সড়ক পরিবহন আইন ২০১৮ এ মুহূর্তে পরিবর্তনের সুযোগ নেই। পরিবহন শ্রমিকদের দাবির বিষয় নিয়ে আলোচনা হতে পারে। পরবর্তী সংসদের জন্য অপেক্ষা করতে হবে।

প্রযুক্তি জগতের সকল আপডেট পেতে সঙ্গে থাকুন ম্যাঙ্গোটিভির

COMMENTS