সোলশেয়ারের প্রোডাক্ট ও বিজনেস ডেভেলপমেন্টের প্রধান হলেন ঈসা আবরার

সোলশেয়ারের প্রোডাক্ট ও বিজনেস ডেভেলপমেন্টের প্রধান হলেন ঈসা আবরার

সোলশেয়ারের প্রোডাক্ট ও বিজনেস ডেভেলপমেন্টের প্রধান হলেন ঈসা আবরার। প্রতিষ্ঠানটির পণ্য উন্নয়ন ও টেকসইকরণের পাশাপাশি বিভিন্ন সলিউশনের বাণিজ্যিকীকরণে কাজ করবেন তিনি।

সোলশেয়ার বিশ্বের প্রথম পিয়ার-টু-পিয়ার এনার্জি এক্সচেঞ্জ নেটওয়ার্ক তৈরি করেছে। প্রতিষ্ঠানটি সমাজের পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীকে বিদ্যুৎ এবং মাইক্রো মোবিলিটির মতো পরিষেবাগুলো আইসিটিভিত্তিক স্বচ্ছ এবং সাশ্রয়ী মূল্যে প্রদানে বাস্তবিক সম্ভাবনা উন্নয়নে কাজ করছে। এসব কাজের স্বীকৃতি হিসেবে এরই মধ্যে অনেক পুরস্কার অর্জন করেছে সোলশেয়ার। সম্প্রতি এনার্জি ক্যাটাগরিতে জায়েদ সাসটেইনেবিলিটি পুরস্কার-২০২২ পেয়েছে প্রতিষ্ঠানটি।

সোলশেয়ারের পণ্য ও ব্যবসায়িক উন্নয়নের প্রধান (পরিচালক) হিসেবে গতকাল রোববার যোগ দিয়েছেন ঈসা আবরার আহমেদ। আবরার প্রতিষ্ঠানটির বিভিন্ন পণ্যের রোডম্যাপ তৈরিতে নেতৃত্ব দেবেন। যার মধ্যে থাকবে ডিজিটাল ও প্রযুক্তিগত উদ্ভাবন, ডিজিটাল ইকোসিস্টেম এবং পাবলিক-প্রাইভেট পার্টনারশিপের পাশাপাশি নতুন ব্যবসার সুযোগ অনুসন্ধান। এ ছাড়া তিনি পণ্য উন্নয়ন কৌশল ও টেকসইকরণসহ বিভিন্ন সলিউশনের বাণিজ্যিকীকরণে কাজ করবেন।

প্রযুক্তিখাতে এক দশকের বেশি অভিজ্ঞতাসম্পন্ন আবরারের বলিষ্ঠ নেতৃত্ব এবং পণ্য পরিকল্পনা ও বাস্তবায়ন দক্ষতা প্রতিষ্ঠানটিকে অনন্য উচ্চতায় পৌঁছে নিয়ে যাবে। এর আগে তার নেতৃত্বেই সম্প্রতি বাংলাদেশ ইনোভেশন অ্যাওয়ার্ড বিজয়ী হয়েছে বিটুবি সাস কোম্পানি এসবিজনেসডটএক্সওয়াইজেড (সেবা প্ল্যাটফর্ম লিমিটেড)। অনলাইন সেবাভিত্তিক এই মার্কেটপ্লেসটিতে এক বছরের ব্যবধানে ১৭০-এর বেশি পেইড মিড-রেঞ্জ করপোরেট কোম্পানিকে সাস সলিউশন প্রদানের গ্রাহক হিসেবে যুক্ত করেছে। যেখানে বর্তমানে প্রতিদিন তিন হাজারের বেশি কর্মকর্তা-কর্মচারী এই সেবা ব্যবহার করছেন।

নতুন এই দায়িত্ব পাওয়ার আগে আবরার বিক্রয় ডটকমের বেশ কয়েকটি আইসিটিভিত্তিক বড় বড় প্রকল্পের নেতৃত্ব দিয়েছেন। ওই সময় তাঁর নেতৃত্বাধীন ইউনিটটি অনলাইন ক্রয়-বিক্রয় সেবায় ২৫০০ পেইড মার্চেন্টকে অনবোর্ড করেছে। এ ছাড়া ঈসা আবরার আহমেদ স্যামসাং ইলেকট্রনিক্সের আইটি প্রোডাক্ট ইউনিটের প্রোডাক্ট ম্যানেজার এবং দেশীয় কংগ্লোমারেট আমরা কোম্পানি লিমিটেডে কৃতিত্বের সাথে দায়িত্ব পালন করেছেন। তিনি আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি-বাংলাদেশ (এআইইউবি) থেকে কৃতিত্বের সঙ্গে সুম্মা কাম লাউড স্বীকৃতিসহ স্নাতক সম্পন্ন করেছেন।

নতুন এই দায়িত্ব সম্পর্কে বলতে গিয়ে আবরার বলেন, ‘বাংলাদেশে বিভিন্ন কারণে ব্যবহারযোগ্য এনার্জি ও মোবিলিটির সম্প্রসারিত বাজার বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। ইন্টারনেট সংযোগের সুবিধাকে কাজে লাগিয়ে সাশ্রয়ীমূল্যে ডিজিটাল সমাধান দেওয়ার মাধ্যমে আমরা এনার্জি খাতের সেবা প্রদানে বিপ্লব নিয়ে আসতে পারি। এ ক্ষেত্রে জনগণ এবং দেশের সমৃদ্ধিতে অবদান রাখতে সোলশেয়ার ও ব্যক্তিগতভাবে আমি বদ্ধপরিকর।’

COMMENTS